আজ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

নওগাঁ জেলায় করোনা পরিস্থিতি’র কিছুটা উন্নতি : আসন্ন শীত মওসুমে বৃদ্ধির আশঙ্কা- সতর্ক স্বাস্থ্য বিভাগের

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: নওগাঁয় করোনা পরিস্থিতি’র উন্নতি হয়েছে। বেশ কয়েকদিন পর জেলায় গত ২৪ ঘন্টায় এক ব্যক্তির শরীরে কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছে।
এ নিয়ে জেলায় কোভিড-১৯ এ মোট আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়ালো ১ হাজার ৩শ ২০ জন-এ। এই সময়ে নুতন করে মৃত্যু, কোয়ারেনটাইন এবং আইসোলেশনে নেয়ার সংখ্যা ছিল শুন্যের কোঠায়।

জেলায় আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত সুস্থ্য হয়েছেন ১ হাজার ২শ ৬৯ জন। সেই হিসেবে বর্তমানে আক্রান্ত রয়েছেন ৫১ জন। সুস্থ্য হওয়ার হার শতকরা ৯৬ দশমিক ২০ ভাগ। বিগত ১০ দিন পেরিয়ে গেছে জেলায় নুতন করে কোন ব্যক্তি মৃত্যুবরন করেন নি। জেলায় এ পর্যন্ত মোট মৃতুবরন করেছেন ২১ জন।

কোভিড-১৯ এ মোট আক্রান্তদের মধ্যে ২৭ জন চিকিৎসক, ৩০ জন নার্স ও ১১৮ জন অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীসহ স্বাস্থ্য বিভাগের মোট ১৭৫ জন এবং পুলিশ বাহিনীর ৮৩ জন সদস্য রয়েছেন।

সিভিলসার্জন অফিসের কন্ট্রোল রুমের বরাত দিয়ে ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ মঞ্জুর মোরশেদ জানিয়েছেন গত শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত এই ২৪ ঘন্টায় নতুন করে কোন ব্যক্তিকে কোয়ারেনটাইনে নেয়া হয় নি।এই সময়ে কাউকে কোয়ারেনটাইন থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয় নি এমন কি এ সময় কেউ সুস্থ্য হয় নি। তিনি বলেছেন বর্তমানে জেলায় করোনা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতির দিকে।

গত ১৫ দিন ধরে নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার শতকরা ৪ থেকে ৫ ভাগ। এই হার ইতিপূর্বে ১৫ থেকে ২০ ভাগ ছিল। তবে তিনি বলেছেন আসন্ন শীত মওসুমে কোভিড-১৯ এর আরেকটি ঢেউ আসার সম্ভাবনা রয়েছে। কাজেই পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে মনে তরে গা ভাসিয়ে দিলে চলবেনা। আমাদের স্বাস্থ্য বিধি মেনে এবং সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে। না হলে করোনা ভাইরাসের সংক্রমন বেড়ে যেতে পারে।

সুত্রমতে এ পর্যন্ত সর্বমোট কোয়ারেনটাইনে নেয়া হয়েছে ১৬ হাজার ৩শ ৪ ব্যক্তিকে। এদের মধ্যে এ কোয়ারেনটাইন থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে মোট ১৫ হাজার ৯শ ৯১ ব্যক্তিকে।

বর্তমানে কোয়ানেরটাইনে রয়েছেন ৩শ ১৩ জন। এদের মধ্যে হাসপাতাল কোয়ারেনটাইনে ছিলেন ৩৬০ জন। হাসপাতাল কোয়ারেনটাইন থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে ৩৫৫ জনকে। হাসপাতাল কোয়ারেনটাইনে রয়েছেন মাত্র ৫ জন।

জেলায় আইসোলেশনে নেয়া হয় ২৭ জনকে এবং এই ২৭ জনই বর্তমানে আইসোলেশন থেকে মুক্ত হয়েছেন। কাজেই বর্তমানে আর কেউ আইসোলেশনে নেই।