আজ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

তেঁতুলিয়ায় বাত ব্যথা ও হাড় ক্ষয় রোধে হেলথ স্ক্রিনিং ক্যাম্পের উদ্বোধন

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: অত্যাধুনিক মেশিনে আলট্রাসাউন্ট পদ্ধতিতে বিনামূল্যে বোন মিনারেল ডেনসিটি (বিএমডি) পরীক্ষার মাধ্যমে বাত ব্যথা ও হাড় ক্ষয় প্রতিরোধে পঞ্চগড় তেঁতুলিয়া অঞ্চলে ছয়দিনব্যাপী হেলথ স্ক্রিনিং ক্যাম্পের ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) থেকে দুই দিনব্যাপী ক্যাম্প শুরু হয়েছে তেঁতুলিয়ার কাজী শাহাবুদ্দিন স্কুল অ্যান্ড কলেজে।

 

স্থানীয় তারুণ্যদীপ্ত অরাজনৈতিক সেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘জাগ্রত তেঁতুলিয়া’র আয়োজনে এতে সার্বিক সহযোগিতা করছে কালের কণ্ঠ ‘শুভসংঘ’। নিউজিল্যান্ড ডেইরি প্রোডাক্টস্ বাংলাদেশ লিমিটেডের সৌজন্যে অনুষ্ঠানগুলো বাস্তবায়নে পৃষ্ঠপোষকতা করছে তেঁতুলিয়া উপজেলা প্রশাসন, তেঁতুলিয়া উপজেলা পরিষদ, তেঁতুলিয়া মডেল থানা, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রমুখ প্রতিষ্ঠান।

 

মঙ্গলবার কলেজ চত্বরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী মাহমুদুর রহমান ডাবলু ক্যাম্পের উদ্বোধন করেন। সংশ্লিষ্ট স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ মো. ইমদাদুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তেঁতুলিয়া উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাসুদুল হক, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবুল কাশেম, তেঁতুলিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জহুরুল ইসলাম।

 

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা মো. আইয়ুব আলী, সমাজসেবক সাহাদৎ হোসেন রঞ্জু প্রমুখ। নিউজিল্যান্ড ডেইরি প্রোডাক্টস ও এসআইবিএল হাসপাতালের ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনিস্ট রেবেকা সুলতানা রুমা এ জাতীয় হেলথ ক্যাম্পের গুরুত্ব তুলে ধরে বক্তব্য দেন।উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী মাহমুদুর রহমান ডাবলু বলেন, অত্যন্ত ব্যয়বহুল এই বিএমডি পরীক্ষা রংপুর বা ঢাকায় গিয়ে করার সামর্থ অনেকেরই নেই। ‌

 

এই এলাকার জনসাধারণের মাঝে বাত ব্যথা ও হাড় ক্ষয় রোধে সচেতনতা তৈরিতে এ ধরনের হেলথ ক্যাম্প আয়োজনের উদ্যোক্তাদের অভিনন্দন জানাই। ভবিষ্যতে এ ধরনের আয়োজনে উপজেলা পরিষদের পক্ষে সার্বিক সহায়তা থাকবে।

 

উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাসুদুল হক বলেন, যেকোনো রোগ প্রতিরোধে সচেতন থাকা এবং আগেভাগে স্ক্রিনিং করা খুব জরুরী। হাড় ক্ষয়ের বেলাও তা প্রযোজ্য। মানুষের হাড় ক্ষয় শুরু হয় সাধারণত ৩০ বছরের পর থেকে। নারীদের এই সমস্যাটা বেশি হয়।

 

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবুল কাশেম বলেন, বাত ব্যথা ও হাড় ক্ষয় রোগে ভুগছে প্রচুর মানুষ। অথচ কারো বাত ব্যথা বা হাড়ে কোন ধরনের ক্ষয় আছে কিনা অথবা ভবিষ্যতে তিনি এ সংক্রান্ত জটিলতায় ভুগছেন কিনা তা জানা সম্ভব এই বিএমডি স্ক্রিনিং এর মাধ্যমে। কারো রোগ ধরা পড়লে এরপর আসবে চিকিৎসার বিষয়টি।

 

জাগ্রত তেঁতুলিয়ার উপদেষ্টা ও বিশিষ্ট সমাজসেবক সাহাদৎ হোসেন রঞ্জু বলেন, ছয় দিনব্যাপী এই বিএমডি হেলথ স্ক্রিনিং ক্যাম্পের মাধ্যমে এই এলাকার প্রায় দেড় হাজার মানুষকে স্ক্রিনিংয়ের আওতায় আনা সম্ভব হবে। ঢাকা থেকে বিএমডি স্ক্রিনিং এর প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিসহ পঞ্চগড়-তেঁতুলিয়া অঞ্চলে সপ্তাহব্যাপী অবস্থান করবেন এ সংক্রান্ত একটি বিশেষজ্ঞ হেলথ টিম।

 

বুধবারও একই স্থানে হেলথ ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবার পর বৃহস্পতিবার খয়খাট পাড়া নূরানী ও হাফিজিয়া মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত হবে একই ধরনের বিএমডি স্ক্রিনিং ক্যাম্প। আগেভাগে রেজিস্ট্রেশনের ভিত্তিতে এসব ক্যাম্পে মানুষজন পরীক্ষা করার সুযোগ পাবেন।