আজ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বায়ুকেই মূল্যবান করে তুললেন গবেষকরা

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: বিশ্বে অন্যতম প্রধান সমস্যা জলবায়ু পরিবর্তন। কার্বন নিঃসরণ বেড়ে যাওয়ায় বায়ুমণ্ডল ক্রমেই বিপজ্জনক হয়ে উঠছে। বাতাসে কার্বন ডাইঅক্সাইডের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় পৃথিবীর ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বেড়ে যাওয়ায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে। এ বিপদ থেকে রক্ষা পেতে নিরন্তর গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

এবার এই কার্বনকেই মূল্যবান সম্পদে পরিণত করলেন যুক্তরাজ্যের একদল গবেষক। বায়ুমণ্ডল থেকে রাসায়নিক উপাদান সংগ্রহ করে বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে পরিবেশবান্ধব হীরা তৈরি করেছেন। তারা বলেছেন, প্রচলিত পদ্ধতিতে হীরা সংগ্রহের জন্য বড় বড় গর্ত খনন করতে হয়। এতেও ক্ষতি হয় পরিবেশের।

গবেষকরা দাবি করেছেন, এটি বিশ্বের প্রথম ‘শূন্য প্রভাব’ হীরা। অতিমূল্যবান হীরা তৈরিতে তারা বায়ুমণ্ডল থেকে নানা রাসায়নিক উপাদান সংগ্রহ করেছেন, সূর্য ও বাতাসের শক্তির পাশাপাশি প্রক্রিয়াটিতে ব্যবহার করেছেন বৃষ্টির পানিও। একটি হীরা তৈরিতে সব মিলে কয়েক সপ্তাহ সময় লাগে। তারা অভাবনীয় এ প্রকল্পকে ‘অঘটন ছাড়াই আভিজাত্য’ আখ্যা দিয়েছেন।

যুক্তরাজ্যের স্ট্রাউড শহরে ‘স্কাই ডায়মন্ড’ নামে হীরা কৃত্রিমভাবে তৈরির উদ্যোগ নিয়েছিলেন সবুজ শক্তি সংস্থা ইকোট্রিসিটির প্রতিষ্ঠাতা ডেল ভিনস। মূল লক্ষ্য ছিল গতানুগতিক পন্থায় হীরা উত্তোলনের পথকে চ্যালেঞ্জ জানানো এবং এমন বিকল্প খুঁজে বের করা যা বিশ্বকে অনেক ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করবে। এ প্রকল্পের সাফল্যের জন্য কাজ করতে হয়েছে প্রায় পাঁচ বছর। তারা নিশ্চিত করেছেন হীরাটি রাসায়নিক ও বাহ্যিক দিক থেকে পৃথিবীর গর্ভ থেকে উত্তোলিত হীরার মতোই।

সূত্র: স্কাই নিউজ।