আজ ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

ক্ষোভে আমেরিকা চলে যাচ্ছেন পাকিস্তানি ওপেনার!

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:বয়স এখনও ২৫ হয়নি। সামনে অনেকটা সময় পড়ে আছে। কিন্তু পাকিস্তানের ওপেনিং ব্যাটসম্যান সামি আসলাম দেশ ছাড়ার কথা ভাবতে শুরু করেছেন। ‘ক্রিকইনফো’র প্রতিবেদন, পাকিস্তানে ক্যারিয়ার নিয়ে হতাশা আর ক্ষোভের কারণেই আমেরিকায় স্থায়ী হওয়ার চেষ্টায় আছেন তিনি।

জাতীয় দলেও খেলার অভিজ্ঞতা হয়েছে। ২০১৫ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে পাকিস্তানের সাদা জার্সিতে ১৩টি টেস্ট খেলেছেন। খেলেছেন ৪টি ওয়ানডেও। টেস্টে ৩১-এর ওপর গড় তাকে বলতে গেলে প্রথম পছন্দের ওপেনারই বানিয়ে দিচ্ছিল। কিন্তু হঠাৎই ছিটকে পড়েন।

এরপর ঘরোয়া ক্রিকেটে রানের বন্যা বইয়েছেন। গত বছর পাকিস্তানের কায়েদ-ই-আজম ট্রফিতে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকদের তালিকায় ছিলেন। কিন্তু দল সাউদার্ন পাঞ্জাবের টিম ম্যানেজম্যান্টের সঙ্গে ঝামেলায় আর নিজেকে ঘরোয়া ক্রিকেটেও নিরাপদ মনে করছেন না সামি আসলাম। তাই যুক্তরাষ্ট্রে থিতু হওয়ার চেষ্টায় দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন।

কি এমন ঘটনা ঘটলো যে দেশ ছাড়ার মতো কঠিন সিদ্ধান্ত? গত মৌসুমে আসলাম ছিলেন সাউদার্ন পাঞ্জাবের অধিনায়ক, সেইসঙ্গে চার সেঞ্চুরি আর ৭৮ গড়ে ৮৬৪ রান করে ছিলেন চতুর্থ সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক।

অথচ সেই মৌসুমেই তাকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হয়। চতুর্থ ইনিংসে রান তাড়ার এক ঘটনাকে কেন্দ্র করে এমন সিদ্ধান্ত নেন হেড কোচ আবদুল রেহমান। নর্দার্নের বিপক্ষে এক ম্যাচে ১১ ওভারে ৮৯ রান দরকার ছিল সাউদার্ন পাঞ্জাবের। রান তাড়ার ২.৩ ওভার পেরুতেই ড্র মেনে নেন সামি আসলাম। যেটি নিয়ে ম্যানেজম্যান্টের সঙ্গে ঝামেলা বাঁধে।

আসলামের ক্যারিয়ারে বাঁকবদল ঘটে তারপরই। এবার তাকে কিনেছিল বেলুচিস্তান, যেটি কিনা দুর্বল দলগুলোর একটি। তিন রাউন্ডে আসলাম মাত্র একটি ফিফটি করতে পারেন। এরপর ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি কাপে বেলুচিস্তানের দ্বিতীয় বিভাগের দলে জায়গা হয় তার।

এর মধ্যে আবিদ আলি আর শান মাসুদ জাতীয় দলের ওপেনিংয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। ব্যাকআপ অপশন হিসেবে আছেন ইমাম উল হক। তারপরও ফেরার আশায় দিন গুনছিলেন আসলাম। তার সেই স্বপ্ন ভাঙে নিউজিল্যান্ড সফরে ৩৫ জনের দলেও জায়গা না পেয়ে।

এত কিছুর পর আর পাকিস্তানে নিজের ক্যারিয়ার দেখছেন না সামি আসলাম। যদিও তিনি শুধু এই কারণেই দেশ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কি না, পরিষ্কারভাবে জানা যায়নি। তবে সত্যিই যদি আমেরিকায় থিতু হতে চান, শুরুতে সে দেশের টি-টোয়েন্টি লিগগুলোতে পারফর্ম করতে হবে আসলামকে। বয়স তো বেশি হয়নি, একটা সময় যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় দলেও দেখা যেতে পারে পাকিস্তানি এই ওপেনারকে।