আজ ৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ফের আটক করা হলো মেহবুবা মুফতিকে, গৃহবন্দী মেয়েও

প্রথমবার্তা প্রতিবেদক,মুক্তির প্রায় দেড় মাসের মাথায় ফের বন্দী হলেন জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি। এদিকে গৃহবন্দী করা হয়েছে তার মেয়ে ইলতিজা মুফতিকেও।

শুক্রবার সকালে পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টি (পিডিপি) নেত্রী মেহবুবা নিজেই টুইট করে বিষয়টি জানিয়েছেন। উপত্যকার জেলা উন্নয়ন পরিষদের (ডিডিসি) নির্বাচনের আগে তাকে আটক করা হলো।

সম্প্রতি সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগে পিডিপির নেতা ওয়াহিদ পারাকে গ্রেফতার করে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ)। ওয়াহিদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে চাওয়াতেই তাদের বন্দী করা হয়েছে বলে অভিযোগ মেহবুবার।
নিজের টুইটার হ্যান্ডলে কাশ্মীরি নেত্রী লেখেন, ‘ফের বেআইনিভাবে আটক করা হয়েছে আমাকে। গত দু’দিন ধরে পুলওয়ামায় ওয়াহিদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দিচ্ছিল না জম্মু ও কাশ্মীর প্রশাসন। বিজেপির মন্ত্রী এবং তাদের অনুচরদের কাশ্মীরে অবাধ বিচরণের অনুমতি রয়েছে। শুধু আমার বেলাতেই নিরাপত্তার দোহাই।’

ওয়াহিদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে চাওয়ায় তার মেয়েকেও গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মেহবুবা। তিনি লেখেন, ‘এদের নিষ্ঠুরতার কোনও সীমা নেই। ভিত্তিহীন অভিযোগ এনে ওয়াহিদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ওর পরিবারকে সমবেদনা জানানোর অধিকারটুকুও নেই আমার। ওয়াহিদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিল বলে আমার মেয়ে ইলতিজাকেও গৃহবন্দী করা হয়েছে।’

এই মুহূর্তে তাদের কোথায় রাখা হয়েছে, তা যদিও খোলসা করেননি মেহবুবা।

কাশ্মীরের বিরোধী শিবির দাবি করে, মেহবুবা-ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত ওয়াহিদ। দক্ষিণ কাশ্মীরে পিডিপির ভিত মজবুত করাতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল তার। পুলওয়ামা থেকে জেলা পরিষদের নির্বাচনে মনোনয়নও জমা দিয়েছিলেন তিনি। যার কারণে বিজেপি শাসিত কেন্দ্রীয় সরকারের রোষানলে পড়তে হলো তাকে।

গত বছর আগস্টের শুরুতে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের আগমুহূর্তে গ্রেফতার হওয়া তিন সাবেক মুখ্যমন্ত্রীর একজন ছিলেন মেহবুবা।

সেসময় কয়েক হাজার রাজনৈতিক নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করে উপত্যকায় স্মরণকালের দীর্ঘতম লকডাউন জারি করে ভারত সরকার। পরবর্তীতে ১৪ মাস পর মুক্তি দেয়া হয় মেহবুবাকে।