আজ ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন প্রস্তাব

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে অভিশংসন প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার ডেমোক্র্যাট শিবির এ প্রস্তাব উত্থাপন করে। এতে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ‘বিশৃঙ্খলায় উসকানির’ অভিযোগ আনা হয়েছে।

 

এ প্রস্তাবের ওপর কংগ্রেসে আগামীকাল বুধবার ভোট হতে পারে। এর মধ্য দিয়ে ট্রাম্প হতে যাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের প্রথম প্রেসিডেন্ট, যিনি দুইবার অভিশংসন প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাবেন।

 

মেয়াদ শেষের আগেই ট্রাম্পকে সরাতে গতকাল ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের কাছে সংবিধানের ২৫তম সংশোধনী প্রয়োগ করে ট্রাম্পকে ক্ষমতাচ্যুত করার আহ্বান জানান আইনপ্রণেতারা। কিন্তু তাঁদের সে উদ্যোগে বাদ সাধেন রিপাবলিকানরা। এরপরই ট্রাম্পকে অভিশংসন করার পথ বেছে নেন ডেমোক্র্যাটরা।

 

অভিশংসন প্রস্তাবে নির্বাচনে জয়ের ট্রাম্পের ভুয়া দাবি ও ৬ জানুয়ারি সহিংসতার আগে সমর্থকদের উদ্দেশে তাঁর দেওয়া বক্তব্যের কথা উল্লেখ করা হয়। এতে জর্জিয়ার রিপাবলিকান সেক্রেটারি অব স্টেটকে ট্রাম্পের ফোনের কথাও উল্লেখ করা হয়, যাতে ট্রাম্প তাঁর জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ভোট ‘খুঁজে বের করতে’ আহ্বান জানিয়েছিলেন।

 

প্রস্তাবে বলা হয়, এসব কিছুর মাধ্যমে ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা ও সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিপন্ন অবস্থার মধ্যে ফেলেছেন। তিনি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার অখণ্ডতাকে হুমকি দিয়েছেন, শান্তিপূর্ণ ক্ষমতার হস্তান্তরে হস্তক্ষেপ করেছেন। অধিকন্তু তিনি প্রেসিডেন্ট হিসেবে তাঁর বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন।

 

নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেনকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিতে গত বুধবার মার্কিন কংগ্রেসে যৌথ অধিবেশন বসে। ওই সময় ‘ট্রাম্পের আহ্বানে’ সেখানে হামলা চালায় তাঁর কয়েক হাজার সমর্থক।

 

পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ানোর পাশাপাশি প্রায় চার ঘণ্টা ধরে জ্বালাও-পোড়াও ও ভাঙচুর চালায় তারা। এ ঘটনায় নিহত হন পুলিশ কর্মকর্তাসহ পাঁচজন। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে দাবি ওঠে, ট্রাম্পকে ২০ জানুয়ারির আগেই ক্ষমতাচ্যুত করা হোক।

 

ডেমোক্র্যাটদের এই দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেন অনেক রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাও। ট্রাম্পকে সরানোর এই প্রচেষ্টায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে শীর্ষ ডেমোক্র্যাট নেতা ও স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি।

 

২৫তম সংশোধনীতে বলা হয়েছে, ভাইস প্রেসিডেন্ট ও মন্ত্রিসভা যদি মনে করে যে প্রেসিডেন্ট মানসিক কিংবা শারীরিকভাবে দায়িত্ব পালনে অযোগ্য, তাহলে তাঁকে সরিয়ে দিতে পারবে।

 

হাউসের স্পিকার পেলোসি এর আগে গত রবিবার আইনপ্রণেতাদের লিখিতভাবে জানিয়েছিলেন, সোমবার (গতকাল) পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে একটি প্রস্তাব তোলা হবে। আর প্রস্তাবের ওপর ভোটাভুটি হবে আজ মঙ্গলবার।

 

সেটি পাস হলে ২৫তম সংশোধনী প্রয়োগ করতে ভাইস প্রেসিডেন্টকে আনুষ্ঠানিকভাবে অনুরোধ জানাবেন আইনপ্রণেতারা। এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে ২৪ ঘণ্টা সময় পাবেন ভাইস প্রেসিডেন্ট।

 

পেলোসি জানান, ২৫তম সংশোধনী প্রয়োগ করা না গেলে ট্রাম্পকে অভিশংসন করা হবে। চলতি সপ্তাহের শেষ দিকে এ নিয়ে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে ভোটাভুটি হতে পারে।

 

এর আগে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে ট্রাম্পকে অভিশংসন করা হয়। যদিও তাঁকে দায়মুক্তি দেয় রিপাবলিকান সংখ্যাগরিষ্ঠ সিনেট। সূত্র : বিবিসি, এএফপি।