আজ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লাদাখের বিতর্কিত এলাকা থেকে সেনা সরায়নি চীন

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃলাদাখের বিতর্কিত অঞ্চলে এখনো আগের মতোই ভারত এবং চীনের সেনা মোতায়েন আছে। সাংবাদিক সম্মেলন করে জানালেন ভারতের সেনাপ্রধান। খবর ডয়চে ভেলে’র।

ফের খবরের শিরোনামে লাদাখ। ভারতের বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমে সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে একটি রিপোর্ট। যাতে বলা হয়েছে, লাদাখের সীমান্ত থেকে প্রায় ১০ হাজার সেনা সরিয়ে নিয়েছে চীন। যার জেরে ভারতও বেশ কিছু সেনা প্রত্যাহার করেছে। ভারতীয় সেনা বাহিনীর প্রধান সেই খবরে হস্তক্ষেপ করে জানিয়েছেন, চীন যে সেনা সরিয়েছে, তা বিতর্কিত এলাকা থেকে কয়েকশ কিলোমিটার দূরে। ফলে লাদাখ সংঘাতে কোনো পরিবর্তন হয়নি। দুই দেশের সেনাই যেখানে ছিল, সেখানেই আছে।

চীনের সংবাদমাধ্যমকে উদ্ধৃত করে ভারতের কোনো কোনো সংবাদমাধ্যম বলেছিল, লাদাখ সীমান্ত থেকে চীনের প্রায় ১০ হাজার সেনা পিছনে চলে গেছে। বাস্তবে কি সত্যিই তা ঘটেছে? সাংবাদিক বৈঠকে ভারতীয় সেনা প্রধান মনোজ মুকুন্দ নারাভানে জানিয়েছেন, প্রতি বছরই চীনের সেনা লাদাখ সীমান্তে রুটিন মহড়ায় আসে। এ বছরও তা করেছে। গরমের শেষে তারা এসেছিল, শীতের প্রথম দফা কাটিয়ে ফিরে গেছে। কিন্তু তারা প্রত্যেকেই বিতর্কিত অঞ্চল থেকে প্রায় ৫০০ কিলোমিটার দূরে মহড়ায় এসেছিল। এর সঙ্গে লাদাখ সংঘাতের কোনো যোগ নেই। বস্তুত, সেনাসূত্র ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছে, বিতর্কিত অঞ্চল থেকে কোনো পক্ষই সেনা প্রত্যাহার করেনি। সংঘাত যেমন ছিল, তেমনই আছে।

ভারত এবং চীন দুই পক্ষই লাদাখ সীমান্তে প্রায় পঞ্চাশ হাজার সেনা মজুত করে রেখেছে। প্রবল শীতের কারণে ভারতীয় সেনাকে রোটেশন পদ্ধতিতে সেখানে রাখা হচ্ছে। নিয়মিত রেশনও পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। চীন এবং ভারত কোনো দেশই এখনো পর্যন্ত কোনো ঐক্যমত্যে পৌঁছতে পারেনি। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, শীত না কাটা পর্যন্ত এই পরিস্থিতি বহাল থাকবে। শীতে কোনো পক্ষই পিছু হঠবে না। কারণ, হঠাৎ কিছু ঘটে গেলে শীতকে উপেক্ষা করে দ্রুত কোনো এলাকায় পৌঁছনো মুশকিল হবে। ফলে গরম পড়া পর্যন্ত এমনই স্থিতাবস্থা চলবে।