আজ ২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১০ই জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বিধি নিষেধ আরোপ সংসদে দর্শনার্থী ও সাংবাদিক প্রবেশে

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ করোনা মহামারীর সময়ে জাতীয় সংসদ সচিবালয়ে দর্শনার্থী ও সাংবাদিকদের প্রবেশে বিধি নিষেধ আরোপ করেছে কর্তৃপক্ষ।

 

প্রায় দুই মাসের ‘সাধারণ ছুটি’ শেষে অফিস-আদালত খুললেও কোনো সংসদ সদস্য বা সংসদের কর্মকর্তা দর্শনার্থীদের সংসদে প্রবেশের পাস দিতে পারবেন না।

 

প্রবেশ করতে পারবেন না গণমাধ্যমকর্মীরাও।১০ জুন থেকে শুরু হতে যাওয়া বাজেট অধিবেশনেও একই ব্যবস্থা বহাল থাকবে বলে সংসদ সচিবালয় থেকে জানানো হয়েছে। ১১ জুন বিকাল ৩টায় ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব সংসদে উত্থাপন করবেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

 

এদিকে অধিবেশন চলাকালে সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে ১৩ দফা সুপারিশ করেছে রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানের নিরাপত্তায় নিয়োজিত বিশেষ নিরাপত্তা বাহিনী (এসএসএফ)।

 

ঐ সুপারিশে অধিবেশনের সময় যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কাছাকাছি যাবেন, তাদের কোভিড-১৯ পরীক্ষা করে সুস্থতা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

 

সেইসঙ্গে অধিবেশন শেষ হওয়া পর্যন্ত তাদের কোয়ারেন্টিনে রাখতে বলা হয়েছে। বাজেট পেশের দিন সংসদ ভবনে মন্ত্রিসভার বৈঠক হয়। সেখানে বাজেট অনুমোদনের পর তা রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের জন্য পাঠানো হয়।

 

ঐ সময় রাষ্ট্রপতি সংসদ ভবনেই অবস্থান করেন। তাছাড়া বাজেট উপস্থাপনের সময় গ্যালারিতে বসে অধিবেশন দেখেন রাষ্ট্রপতি।এছাড়া সংসদ সদস্যদের দেহরক্ষী ও ব্যক্তিগত সহকারীরা যাতে সংসদ ভবনে ঢুকতে না পারেন, সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

 

সংসদ সদস্যদের গাড়ি চালকরা যাতে নিরাপদ দূরত্বে থাকতে পারেন, সে ব্যবস্থা নেওয়ারও সুপারিশ করেছে এসএসএফ। সংসদ সদস্যদের গাড়িও দূরত্ব বজায় রেখে পার্ক করার ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

 

এসএসএফের সুপারিশে বলা হয়েছে, যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী সংসদ অধিবেশনে কাজ করবেন তারা যাতে ‘অপ্রয়োজনীয় দর্শনার্থী’ বা বাইরের কারও সাথে মেলামেশা না করেন- সে ব্যবস্থা নিতে হবে।

 

সীমিত সংখ্যক গণমাধ্যমকর্মীকে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করে সংসদ ভবনে ঢোকার অনুমতি দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে সেখানে।

 

এদিকে সংসদ সচিবালয়ের গণসংযোগ শাখা থেকে ‘সংসদ টেলিভিশন’ এর সরাসরি সম্প্রচার দেখে বাজেট অধিবেশনের খবর সংগ্রহের অনুরোধ করা হয়েছে সাংবাদিকদের।

 

নিয়মানুযায়ী সংসদে প্রবেশ করতে হলে সংসদ সদস্য অথবা সংসদের কোনো কর্মকর্তার মাধ্যমে পাস নিতে হয়। তবে করোনা মহামারীর কারণে এ নিয়মের ভিন্নতা এনেছে সংসদ সচিবালয়।

 

সংসদ সচিবালয়ের সার্জেন্ট অ্যাট আর্মস ক্যাপ্টেন এম এম নাঈম রহমান বলেন, ‘সরকারি নির্দেশে সীমিত পরিসরে এখন আমরা কাজ করছি। সেজন্য যত কম লোক দিয়ে অফিস পরিচালনা করা যায়,

 

সেটাই করা হচ্ছে। অধিবেশনেও একই ব্যবস্থা থাকবে। এখন সংসদ সচিবালয়ে কোনো দর্শনার্থী প্রবেশ করতে পারবেন না। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং সংসদের নিজস্ব নীতিমালা অনুযায়ী এই পরিস্থিতির মধ্যে কাজ করছি আমরা। গণমাধ্যমকর্মীদেরও আমরা সংসদে আসার ব্যাপারে নিরুৎসাহিত করছি।’

 

উল্লেখ, করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে গত ২৫ মার্চ থেকে অফিস আদালত এবং যানবাহন চলাচল বন্ধ করে সবাইকে ঘরে থাকতে বলেছিল সরকার।

 

টানা ৬৬ দিনের সেই লকডাউন শেষে গতকাল রবিবার থেকে সীমিত পরিসরে অফিস খোলার পাশাপাশি গণপরিবহন চলাচালের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

এই পোস্টটি আমাদের সোশাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন