প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: ২০০৬ সালের মার্চে সুইজারল্যান্ডের বাসেলে আর্জেন্টিনা-ক্রোয়েশিয়া প্রীতি ম্যাচে প্রথম দেখা হয়েছিল তাদের। টিনএজার লিওনেল মেসি তখন আর্জেন্টিনা দলের সবচেয়ে নবীন খেলোয়াড়।

 

সেই ম্যাচেই ক্রোয়েশিয়ার জার্সিতে অভিষেক হয় ২০ বছর বয়সি লুকা মদরিচের। মেসি সেদিন গোল পেয়েছিলেন, মদরিচ পেয়েছিলেন জয়।

 

সাড়ে ১৬ বছর পর দুজনই এখন ফুটবল ইতিহাসের অবিচ্ছেদ্য অংশ, নিজ নিজ দলের অধিনায়ক। লুসাইলে আজ কাতার বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে মদরিচের ক্রোয়েশিয়ার মুখোমুখি মেসির আর্জেন্টিনা। লড়াইটা দুই জাদুকরেরও।

 

মেসি পিএসজিতে পাড়ি জমানোর আগে লা লিগায় বার্সেলোনা-রিয়াল মাদ্রিদ মহারণে বহুবার মুখোমুখি হয়েছেন দুজন। গত বিশ্বকাপেও গ্রুপপর্বে দেখা হয়েছিল মেসি ও মদরিচের।

 

সেবার ক্রোয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলের প্রতিরোধবিহীন হারের বদলা নেওয়ার ভাবনা এবার থাকতেই পারে মেসির। ক্রোয়েশিয়াকে রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে তুলে মেসি-রোনাল্ডোর রাজত্বে হানা দিয়ে ২০১৮ সালে ব্যালন ডি’অরও জিতে নেন মদরিচ।

 

কাতার বিশ্বকাপে অবশ্য ৩৭ বছর বয়সি ক্রোট মিডফিল্ডারের ভূমিকাটা নীরব নায়কের। আসরে এখনো গোলের দেখা পাননি মদরিচ। তবে রক্ষণচেরা পাসে গোলার মতো শটে প্রতিপক্ষ শিবিরে ঠিকই ভীতি ছড়াচ্ছেন। ম্যান মার্কিংয়ে তাকে আটকানোর চেষ্টা করবে আর্জেন্টিনা।

 

মদরিচের তুলনায় কাতার বিশ্বকাপে অনেক বেশি সপ্রতিভ মেসি। নিজে করেছেন চার গোল, করিয়েছেন দুটি। ম্যাচসেরা হয়েছেন তিনবার। প্রায় প্রতি ম্যাচেই জাদুকরি পাসে বা গোলে ব্যবধান গড়ে দিচ্ছেন মেসি।

 

আর্জেন্টিনা অধিনায়ককে থামানোর সম্ভাব্য কৌশল নিয়ে ক্রোয়েশিয়া কোচ জ্লাতকো দালিচ বললেন, ‘দলগত খেলায় ব্যক্তিগত নৈপুণ্য কাজ করে না। আমরা আগেও এমন করিনি, সামনেও করব না।

 

তবে মেসিকে খেলার জন্য জায়গা কমিয়ে দিতে হবে। সে খুব বেশি দৌড়ায় না, বলের পেছনেও বেশি ছোটে না। সে অপেক্ষা করে এবং বল পাওয়ার পর নিজের শক্তি কাজে লাগায়। এদিকটি নিয়ে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।’

 

ক্রোট ফরোয়ার্ড ব্রুনো পেতকোভিচ অবশ্য শুধু মেসিকে নিয়ে পড়ে থাকতে রাজি নন, ‘সাধারণত আমরা নির্দিষ্ট কোনো খেলোয়াড়কে থামানোর পরিকল্পনা করি না।

 

আমরা পুরো দল নিয়ে পরিকল্পনা সাজাই। খেলোয়াড় ধরে ম্যান মার্কিং করে নয়, তাদের পুরো দলকেই আটকাতে চাই। আর্জেন্টিনা দলে মেসি একা খেলে না, তাদের অনেক অসাধারণ খেলোয়াড় আছে। পুরো আর্জেন্টিনা দলকেই থামাতে হবে আমাদের।’

 

প্রতিপক্ষকে আটকানোর পরিকল্পনায় দুই গোলকিপারও থাকবেন ভালোভাবে। শেষপ্রহরী দমিনিক লিভাকোভিচের বীরত্বেই জাপান ও ব্রাজিলকে টাইব্রেকারে হারিয়ে সেমিতে উঠেছে ক্রোয়েশিয়া।

 

একইভাবে টাইব্রেকারে গড়ানো কোয়ার্টার ফাইনালে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার জয়ের নায়ক ছিলেন গোলকিপার এমিলিয়ানো মার্তিনেজ।